7406 Views

সময়কে বলা যায় পৃথিবীর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস। ঠিক জন্মের মুহূর্ত থেকেই আমাদের জীবন ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যায়। আমরা সবাই খুব সীমিত সময় হাতে নিয়ে পৃথিবীতে এসেছি। কেউ হয়তো তাড়াতাড়ি চলে যাব, কেউ হয়তো একটু দেরিতে। কিন্তু কারও হাতেই অফুরন্ত সময় নেই। প্রতিটি মহূর্তে আমরা শেষ মহূর্তটির দিকে এগিয়ে যাচ্ছি।

 

কিন্তু প্রতিদিন এমন কত মুহূর্ত আপনি নষ্ট করছেন! কত সময় কাটাচ্ছেন এমন কাজ করে যেগুলো আপনার উদ্দেশ্যের ধারে কাছেও যায় না! কতদিন ঘুমোনোর সময় মনে মনে বলেন, আজ আমার যা যা করার প্রয়োজন ছিল তার কোনোটাই করা হলো না!

 

জন্ম আর মৃত্যুর দুটোই শুধুমাত্র দুটো তারিখ, যা আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি না। কিন্তু যেটা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি সেটা হচ্ছে এর মাঝখানের সময়টুকু। এই সময়টুকু আপনি পেয়েছেন মানুষের জীবনকে প্রভাবিত করার জন্য, পৃথিবীর বুকে আপনার চিহ্ন রেখে যাওয়ার জন্য। আপনি এই সময়টাকে কীভাবে ব্যবহার করছেন তার ওপরই নির্ভর করে আপনি কে? কী কারণে আপনার মৃত্যুর পরেও মানুষ আপনাকে মনে রাখবে?

 

প্রতিদিন নানাভাবে আমরা আমাদের সময় নষ্ট করি। কিছু আমরা বুঝতে পারি, কিছু পারি না। চলুন তাহলে জেনে নেই কোন কাজগুলো আমাদের সময় নষ্টের জন্য দায়ী।

 

নিজের অনিচ্ছায় শুধুমাত্র পরিবারের খুশির জন্য কোনো কাজ করা

 

Follow your own passion- not your Parents’; not your Teachers’- ‘YOURS’. -Robart Ballard

 

আপনি যে পরিবেশে বাস করছেন, কাজ করছেন, তা কি আপনার মনের মতো? একটু সময় নিয়ে ভাবুন, আপনার আশেপাশের অবস্থা নিয়ে আপনি কতটুকু খুশি? আপনি কি সত্যিই সন্তুষ্ট? নাকি শুধুমাত্র পরিবার অথবা অন্য কাউকে খুশি করার জন্য সব করছেন? বিশ্বের অনেক জায়গার মতো বাংলাদেশেও প্রচুর মানুষ নিজের পেশা নিয়ে সন্তুষ্ট নন। শুধু পেশা না, যে কোনো কাজই নিজের ইচ্ছার বিরুদ্ধে করা উচিত না। যে কাজটা করে আপনি আনন্দ পাচ্ছেন না, যে কাজটা আপনাকে নিজের উন্নতি করতে আগ্রহ যোগায় না, সেটা করে আসলে কোনো লাভ নেই। সেই কাজটা আপনাকে কোনোভাবেই সাহায্য করবে না। আপনি নিজের পছন্দ, নিজের যোগ্যতা সবই জানেন। সময় নষ্ট না করে সেই কাজটা বেছে নিন যা আপনাকে এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে। কারণ যে কাজ আপনাকে, আপনার ব্যক্তিত্বকে, আপনার যোগ্যতাকে উন্নতি করতে সাহায্য করে না তা শুধুমাত্র সময়ের অপচয়।

 

শুধু একাকিত্ব থেকে মুক্তি পেতে কারও সাথে সম্পর্কে জড়ানো

 

যদি আপনি কাউকে ভালোবাসেন, তার সাথে সম্পর্কে জড়ানো কোনো অপরাধ অথবা সময়ের অপচয় না। কারণ ভালোবাসা জীবনের অবিচ্ছেদ্য একটা অংশ। সামাজিক জীব হিসেবে মানুষের জীবনে সম্পর্ক খুবই গুরুত্বপূর্ণ। হোক সেটা প্রেমের সম্পর্ক, হোক বন্ধুত্বের সম্পর্ক অথবা হোক অন্য যে কোনো সামাজিক সম্পর্ক।

কিন্তু কিছু কিছু সম্পর্ক সময়ের অপচয় হতেও পারে। আপনার সম্পর্কটা আপনার জীবনে কীরকম প্রভাব ফেলছে? আপনার সম্পর্কটা কি আপনাকে নিজেকে গড়ে তুলতে সাহায্য করছে নাকি আপনাকে আরও পেছনের দিকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে?

 

যদি একাকিত্ব দূর করার জন্য সম্পর্কে জড়িয়ে থাকেন, তাহলে আমি বলব সেই একাকিত্বের সময়টাকে বরং নিজেকে গড়ে তুলতে কাজে লাগান। নতুন কিছু শেখার চেষ্টা করুন, নিজের ভালো লাগার কাজে আরও সময় দিন। যে সময়টা হয়তো আপনার কোনো গুরুত্বপূর্ণ কাজে লাগতে পারত, সেই সময়টা কোনো উদ্দেশ্যহীন সম্পর্কে জড়িয়ে নষ্ট করার কোনো মানে হয় না।

 

নিজের দক্ষতা জেনেও অন্যের মতামতের জন্য অপেক্ষা করা

 

আপনি কী পারবেন আর কী পারবেন না তা অন্য কারও ইচ্ছার ওপর নির্ভর করে না। আপনার যোগ্যতা আপনার চেয়ে ভালো কেউ জানে না। হ্যাঁ, আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে প্রতিদিন যাকে দেখেন সেই আপনাকে পৃথিবীর সবার চেয়ে ভালো চেনে, সেই আপনার সবচেয়ে কাছের বন্ধু।

 

Don’t let other people’s opinions distort your reality. Be true to yourself. Be bold in pursuing your dreams. BE UNAPOLOGETICALLY YOU.” Steve Maraboli

 

বোঝার চেষ্টা করুন আপনি কিসে ভালো আর কিসে ভালো নন এবং যে কাজটাতে আপনি সবচেয়ে ভালো সেটাকে আপনার পেশা হিসেবে বেছে নেওয়ার চেষ্টা করুন। আপনি যদি গান গাইতে না পারেন তাহলে গায়ক হওয়ার চেষ্টা করা আপনার সময় নষ্ট ছাড়া কিছু নয়। আর আপনি তা খুব ভালো করেই জানেন। আবার আপনি যদি খুব ভালো লিখতে পারেন, তাহলে এখনই কাগজ কলম নিয়ে বসে পড়ুন। অন্যের মতামতের অপেক্ষা করে কাটানো মুহূর্তগুলো কিন্তু আর ফিরে আসবে না।

 

উদ্দেশ্যহীন এগিয়ে চলা

 

আমাদের সবার জীবনেরই একটা না একটা উদ্দেশ্য থাকা উচিত। আপনার জীবনেরও একটা উদ্দেশ্য আছে। আপনি কী করতে চান? কেন করতে চান? এ বিষয়ে আপনার পরিষ্কার ধারণা থাকা উচিত। কারণ যখনই আপনার কাছে কাজ করার একটি উপযুক্ত কারণ থাকবে, দেখবেন কাজের আগ্রহ হাজার গুণ বেড়ে যাবে।

একটি নোটবুকে আপনার এই ‘কেন’ এর উত্তরটা লিখে ফেলুন। আপনার উদ্দেশ্য সম্পর্কে ধারণা পরিষ্কার হওয়ার পাশাপাশি আপনাকে কী করতে হবে তাও আপনি খুব ভালোভাবে বুঝতে পারবেন। আর এই উত্তরটা যদি আপনার মনে একটা পাকা জায়গা করে নিতে পারে তাহলে সময় নষ্ট করার কথা আর মনে ঠাঁই পাবে না।

 

আপনার উদ্দেশ্যটা যদি আপনার চোখে পানি না নিয়ে আসতে পারে, তাহলে হয়তো সেটা আপনাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য যথেষ্ট নয়। সেক্ষেত্রে উদ্দেশ্যবিহীন কাজ করে সময় নষ্ট করাটা খুব বিচিত্র নয়।

 

একসাথে সকলের সমস্যা দূর করার চেষ্টা করা

 

Trying to please EVERYONE is a recipe for stress, misery and frustration.

Be YOURSELF. It’ll be good to know who’s down with that.

 

মানুষকে সাহায্য করতে চাওয়া চমৎকার একটি গুণ। কিন্তু তারও একটি সীমারেখা আছে। আপনি যদি সবাইকেই সাহায্য করতে চান, সবার সমস্যাই দূর করতে চান তাহলে অবশেষে দেখা যাবে কাউকেই সাহায্য করতে পারছেন না। সবার মনের ইচ্ছা পূরণ করা কারও পক্ষেই সম্ভব না। তাই কম গুরুত্বপূর্ণ কাজ নিয়ে ভেবে সময় নষ্ট না করে যার সত্যিই আপনার সাহায্যের প্রয়োজন তাকে সাহায্য করাই ভালো।

 

জীবন খুবই সীমিত কিছু সময়ের সমষ্টি মাত্র। এই সময়কে যে যত ভালো ভাবে কাজে লাগাতে পারবে, সে হবে তত সফল। তাই অপ্রয়োজনীয় কাজে সময় অপচয় না করে গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো আগে করুন। সময় কারোর জন্যই থেমে থাকে না।

Muhsina Zaman Khan Protity

আমি একজন স্বপ্নবিলাসী মানুষ। স্বপ্ন দেখতে আমি খুব ভালোবাসি। আর ভালোবাসি নতুন নতুন বন্ধু তৈরি করতে। সবসময় চেষ্টা করি আমার আশেপাশের মানুষদের খুশি দেখতে। কারো মুখে হাসি ফোটাতে পারলে সেটাই আমার সেরা অনুভূতি।

More Posts

Follow Me:
facebook LinkedIn twitter