অফিস মিটিং সফল করার কৌশলাদি

আপনি রবিবার সকালে অফিসে আসলেন এবং এসেই জানতে পারলেন কিছুক্ষণের মধ্যে আপনার মিটিং শুরু হবে। কিন্তু আপনার কিছুই গোছানো হয়নি। কী করবেন এই মূহুর্তে আপনি? আমরা মিটিংয়ে প্রায়ই বেশ কিছু ভুল করি যা মোটেও কাম্য নয়। যার ফলে অনেক সময় নষ্ট হয় এবং কাঙ্ক্ষিত ফলও পাওয়া যায় না।

 

মিটিংগুলোতে আমরা মূলত যে সমস্যাগুলোতে পড়ি

 

ব্যবসায় লাভ অথবা বিক্রি কতো হলো এইসব বিষয়ে যখনই কোনো মিটিং হয় কিছু বিষয় বরাবরই একই থাকে সেগুলো হলো, কেমন সেলস হলো, কাদের সাথে মিটিং হয়েছে, কাজটি কেমন ছিল ইত্যাদি। এইসব প্রশ্নের উত্তর দিতে একজন যদি কম করে হলেও ৬ মিনিট নেয় তবে মিটিংয়ে ৬ জন উপস্থিত থাকলে এক ঘন্টা সবার অভিব্যক্তি শুনতেই শেষ হয়ে যাবে। এটাই কী একজন কর্মীর সময়ের সঠিক ব্যবহার!

 

বার্ষিক সেলসের উপর যে মিটিং হয় তাতে বিগত সময়ে কী কী করা হয়েছিল সে সম্বন্ধে কথা বলা হয়। প্রত্যেক কর্মী যদি ২০ থেকে ৩০ মিনিট মিটিং কী নিয়ে এবং সেজন্য কী কী করা হয়েছিল ইত্যাদি বিষয় নিয়ে কথা বলতে থাকে, তবে অনেকটা সময় নষ্ট হয়ে যায়। এর ফলে দেখা যায়, একদম শেষে এসে মিটিংয়ের মূল এজেন্ডা নিয়ে কথা শুরু করা হয়, কিন্তু সময়ের অভাবে আসল বিষয় নিয়েই কথা শেষ করা সম্ভব হয় না। প্রজেক্ট মিটিংয়ে পূর্ব অভিজ্ঞতা নিয়ে আলোচনা হয় কিন্তু ভবিষ্যতে কী করা যেতে পারে তা নিয়ে অন্যদের কাছ থেকে অভিমত নেয়ার সময় হয় না।

 

বোর্ড মিটিংয়েও একই ধরণের সমস্যা হয়। কে কী করেছে এইসব প্রশ্ন ও উত্তরের মাঝখানে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায় নিয়ে একদম শেষে কথা বলা হয় যখন হাতে আর সময় থাকে না।

 

মিটিং কখন সফল হবে?

 

এবার আসা যাক তাহলে মিটিংয়ে কী নিয়ে আলোচনা করা উচিত। মিটিং মূলত খুব ছোট সময়ের মধ্যে সমাপ্ত করা উচিত যেন বর্তমান অবস্থা, তাতে কী সমস্যা এবং ভবিষ্যৎ পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনা করা যায়। কেননা সময় খুবই মূল্যবান সেটা কর্মকর্তা আবার পরিচালক যেই হোক না কেন। তাই মূল বিষয় নিয়ে কথা বলা অত্যন্ত জরুরি।

 

সহকর্মীদের সাথে আগেই শেয়ার করুন

 

আপনি বর্তমানে কী করছেন, অতীতে কী করেছেন অথবা কোন কাজটি আপনি ভবিষ্যতে করবেন সেই বিষয়ে আপনার সহকর্মীদের জানিয়ে দিন। মিটিং আলাদা করে রিপোর্ট পড়ে সময় নষ্ট করার কী দরকার! আপনি কোন কাজগুলো করেছেন তার দিকে দৃষ্টি দেয়া থেকে কাজটি অর্জনে আপনার কী করা উচিত সেদিকে ফোকাস করুন। তাহলে সহকর্মীরাও বুঝতে পারবে আপনার দায়িত্বগুলো। এছাড়া আপনার উর্দ্ধতন কর্মকর্তারাও আপনার দায়িত্বগুলো সম্পর্কে অবগত থাকবেন। পরবর্তীতে আপনাকে কতটুকু দায়িত্ব দেয়া উচিত, আপনার যোগ্যতা কতটুকু তাও বুঝে যাবে। এর ফলে নতুন কাজের দায়িত্ব বন্টণ করাও সহজ হয়। কারণ, এক বসায় কে কোন কাজ করছে সহজে নোট করে ফেলা যায়।

 

সমস্যা এবং সমাধানের নোট তৈরি করে ফেলুন

 

আপনি যখন আপনার কাজের রিপোর্ট তৈরি করবেন আগে থেকেই নোট করে রাখুন কোন জায়গাটায় আপনি সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছেন অথবা কোথায় আপনার সাহায্য লাগবে। যেমন ধরুন, আপনার সেলস রিপোর্ট তৈরি করতে সমস্যা হচ্ছে যার জন্য সেই কাজটিতে সহকর্মীদের সাহায্য লাগবে। সে ব্যাপারে মিটিংয়ে সুনির্দিষ্টভাবে কথা বলুন। আবার এমনও হতে পারে, আপনার বার্ষিক বাজেট তৈরি করতে হবে কিন্তু কিছু হিসাব মিলছে না এ ব্যাপারগুলো মিটিংয়ে তুলে ধরুন।

 

তাহলে অহেতুক সময় নষ্ট হবে না। সিনিয়রদের কাছ থেকে পরামর্শ নিয়ে আপনার কাজটি আরো সুন্দর করে করতে পারবেন।

 

ভবিষ্যত পদক্ষেপের লিস্ট করে ফেলুন

 

মনে রাখবেন, একটি ফলপ্রসূ মিটিংয়ে আপনি বর্তমানে কী অবস্থানে আছেন সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয় বরং ভবিষ্যতে কী করতে চান বা কোম্পানিকে কোন অবস্থানে নিয়ে যেতে চান সে বিষয়ে আলোচনা করুন। মিটিংয়ের মূল এজেন্ডা এটাই হওয়া উচিত যে, কোম্পানির লক্ষ্য অর্জনের জন্য সকলের ভবিষ্যৎ পদক্ষেপ কেমন হবে। হতে পারে, আগামী মাসে সেলস কতো আশা করছেন অথবা কোন কোম্পানিগুলোর সাথে চুক্তি করবেন এ বিষয়গুলো সহকর্মীদের জানিয়ে রাখুন।  

 

আপনি যদি পরিচালক হোন তাহলে আপনার লক্ষ্যগুলো কর্মীদের সামনে আবার পরিষ্কার করুন।  এতে করে তারাও বুঝতে পারবে আপনি তাদের কাছ থেকে কী চাচ্ছেন এবং সেই লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্য কী করা প্রয়োজন তার সঠিক গাইড লাইনও পাবে৷ অনেকে মিলে যখন আইডিয়া দেয় তখন কম সময়ে অনেক নতুন নতুন বিষয় সামনে চলে আসে৷

 

বিভাগ ভিত্তিক অগ্রগতি নিয়ে কথা বলুন

 

মিটিং বিভিন্ন ধরণের হতে পারে। কোনোটা বিশেষ বিষয়ের উপর ভিত্তি করে, কোনোটা আবার নির্দিষ্ট বিভাগ ভিত্তিক হয়ে থাকে। যখন মিটিংগুলো হয় সহকর্মীরা একে অন্যের সাথে যোগাযোগ করার, বিশেষ করে উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে সংযুক্ত হওয়ার একটি পাইপলাইন পায়। বিভিন্ন বিভাগগুলো যখন ঠিক মতো কাজ করে তখনই একটি প্রতিষ্ঠানের অগ্রগতি নিশ্চিত হয়। তাই মিটিংয়ে বিভিন্ন বিভাগগুলোর কাজের অগ্রগতি নিয়ে কথা বলুন। কোথায় কী সমস্যা হচ্ছে জানার চেষ্টা করুন। সকল বিভাগ একটি আরেকটির সাথে ঠিকমতো কাজ করছে কিনা সেটি নিশ্চিত করুন।

 

পরিবর্তনীয় বিষয়সমূহ নিয়ে আলোচনা

 

আপনার কোম্পানির লোকসান হচ্ছে অথবা বাজারে শেয়ার পড়ে গেছে কিংবা কর্মীরা সন্তুষ্ট নয়! এধরণের বিষয়গুলোতে সমাধানে আসার জন্য মিটিং হতে পারে খুব সুন্দর একটি মাধ্যম। সকলের অভিমত জানুন। আপনি কী ভাবছেন তাও পরিষ্কার করুন৷ এতে করে আপনার ও তাদের মধ্যে যে দূরত্ব ছিল তা আর থাকবে না এবং খুব অল্প সময়ে সহজ সমাধানে আসা যাবে। পরিবর্তন নতুন প্রযুক্তির ক্ষেত্রে হতে পারে অথবা কোম্পানির কালচারেও হতে পারে। তাই নতুন কোনো পরিবর্তন আনার আগে সহকর্মীদের সাথে শেয়ার করুন। তারা কী চাচ্ছে জানুন, তারা কী আদৌ সে পরিবর্তনের জন্য প্রস্তুত কিনা বুঝার চেষ্টা করুন। কেননা পরিবর্তনটা তাদের নিয়েই এবং তাদের দিয়েই সম্ভব।

 

কর্মক্ষেত্রে প্রতিটা মুহূর্ত অনেক গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, প্রত্যেকটা কাজ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সম্পূর্ণ করতে হয়। তাছাড়া আপনার প্রতিযোগী তো আছেই তাদের টক্কর দেয়ার জন্য হলেও আপনাকে যথেষ্ট সচেতন এবং বুঝে পদক্ষেপ নিতে হবে। মিটিং হচ্ছে একটি অন্যতম মাধ্যম যেখানে সিনিয়র-জুনিয়র একত্রিত হয়ে আলোচনা ও মতামত বিনিময়ের সুযোগ পায়। তাই মিটিংয়ে যে বিষয়গুলো আলোচনা করা অত্যন্ত জরুরি সেগুলো নিয়েই কেবল আলোচনা করা উচিত। তাহলে একদিকে সময় যেমন অপচয় হবে না, তেমনি মিটিংয়ের উদ্দেশ্যও বাস্তবায়িত হবে। 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *