সামনে পরীক্ষা! চিন্তিত? জেনে নাও গুরুত্বপূর্ণ কিছু কৌশল

ধরো কাল তোমার পরীক্ষা, রাত জেগে পড়ার টেবিলে বসে আছো।
ঘুম আসছে না তোমার
হঠাৎ করে ভয়ার্ত কন্ঠে উঠে আমি বললাম-
ভালোবাসো? তুমি কি রাগ করবে?

 

– ভালোবাসি, ভালোবাসি
                       সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়

 

কবিতাটা সুন্দর না? প্রতিউত্তরে নাহয় আপনার ‘হ্যাঁ’ টাকেই ভেবে নিচ্ছি! কিন্তু, একটা ব্যাপার একটু লক্ষ্য করলেই আপনি দেখবেন, পরীক্ষার ঠিক আগে আপনার পছন্দের সাথে অপছন্দের সারির সব জিনিসগুলোও করতে আপনার বেশ ভালোই লাগছে। যেমনটা ধরুন, অবসরে টিভির সবকটা চ্যানেল ঘুরে পছন্দসই কোনো কিছু না পেলেও, পরীক্ষার আগে সব আপনার পছন্দের প্রোগ্রাম পেয়ে যাচ্ছেন। শুধু তাই নয়, তখন যেন রাজ্যের সবার ঘুম জড়ো হয় দু’চোখের পাতায় বা অযথা আনমনে ভাবনার আনাগোনাও যেন বেড়ে যায়। মোটকথা, এভাবেই আমাদের সবার পরীক্ষার একাংশ চিত্রের সূচনার সমাগম ঘটে।  

 

যাকগে, আমরা আবার কবিতায় ফিরে যাই। এখন কবিতার সেই কথাগুলো আবার ভাবুনতো, আপনি কী রাগ করবেন নাকি করবেন না? তবে এখানে রাগ করাটাই স্বাভাবিকভাবে নেওয়া যায়। কারণ, পরীক্ষা যখন দরজার করিডোরে কড়া-নাড়ে তখন সারা বছর কী করেছি না ভেবে রাত জেগে কারো শেষ প্রস্তুতি হয়, মশার ন্যায় গুঞ্জনে বা করো নীরবে। তবে অনেক সময়ই  সারাবছর খুব পড়াশোনা করেও অনেক শিক্ষার্থী তাদের আশানুরূপ ফল পায় না। এর কারণ হতে পারে, পরীক্ষার হলে উত্তরপত্র লেখার কিছু কৌশল অবলম্বন না করা। তাই আপনার পরীক্ষার শেষ প্রস্তুতির সাথে ঝালাই করে নিন কিছু কৌশল:

 

উওরপত্রের টুকিটাকি

 

আমাদের মধ্যে অনেকেই এমন আছেন যারা উওরপত্র পাওয়ার সাথে সাথেই লিখা শুরু করে দেন। পরবর্তীতে বেশখানিকটা লিখতে লিখতে আবিষ্কার করলেন, খাতাটাই ছেড়া বা এতে অন্য কোনো সমস্যা আছে। অথচ এই দিকে পরীক্ষার অনেকটা সময়ও শেষ আর আপনাকে নতুন করে আরেকটা উওরপত্র দেওয়াও যাচ্ছে না। তাই পরে হায়-হুতাশ না করে প্রথম কাজই হচ্ছে, লেখা শুরু করার পূর্বে উত্তরপত্র যথাযথ আছে কিনা তা ভালোভাবে দেখে নেয়া। ব্যাপারটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ, কেননা কোনো কোনো সময় এ ধরণের উত্তরপত্র জমা দিলে অসৎ উপায় অবলম্বন করা হয়েছে বলে পরীক্ষক সন্দেহ করতে পারেন। যেটা পরীক্ষার্থীদের উপর খারাপ প্রভাব ফেলে এবং কোনো কোনো সময় রেজাল্টেও সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে।

 

তথ্যসমূহ নির্ভুলভাবে পূরণ

 

‘কিরে বন্ধু! প্রিপারেশন কেমন? আমি তো ঠিক মতো সবটা পড়তেই পারিনি’ বা অপরিচিত কারো সাথে বসলে ‘কোন প্রতিষ্ঠান/ নাম কি?’ এমন নানা খোশগল্পে উওরপত্র পূরণের সাথে সাথে পরীক্ষার শুরুতেই আমরা অনেকেই ব্যস্ত হয়ে পড়ি। অথচ কখনো কখনো দেখা যায়, উত্তরপত্রে রোল নম্বর না লেখা, ভুল লেখা, সঠিকভাবে বৃত্ত ভরাট না করার কারণে পরীক্ষার খাতায় ভালো লিখেও নাম্বার পাওয়া যায় না বা অনেকক্ষেত্রে পরীক্ষার ফল স্থগিত হয়ে যায়। তাই, উত্তরপত্রের নির্ধারিত স্থানে পরিষ্কারভাবে রোল নম্বর, রেজিস্ট্রেশন নম্বর, বিষয় কোডসহ প্রয়োজনীয় তথ্য ভালোভাবে লিখতে হবে ও সঠিকভাবে লেখা হয়েছে কিনা তা চেক করে বৃত্ত সঠিকভাবে ভরাট করতে হবে। সুতরাং, এই বিষয়টাতে পরীক্ষার্থীকে অত্যন্ত সজাগ ও সচেতন থাকতেই হবে।

 

হাতের লেখার সমান গুরুত্ব

 

কমবেশি আমরা সবাই সুন্দরের পূজারী, এক্ষেত্রেও তার উল্টোটা নয়। কিন্তু, হাতের লেখা সুন্দরই হতে হবে এমনটাও নয়। তবে হ্যাঁ, হতে হবে পরিষ্কার। ধরুন, আপনি আর আপনার একজন বন্ধু কোথাও বেড়াতে যাচ্ছেন। আপনি বেশ পরিপাটি ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হয়েই গেলেন, অন্যদিকে অপরজন বাসার পুরোনো কোনো পোশাকে কোনো রকমে বেরিয়ে পড়লেন। এখন বলুন, সবচেয়ে ভালো আকর্ষণ কাজ করবে কার প্রতি? অবশ্যই আপনার! ঠিক পরীক্ষার খাতায়ও পরীক্ষক যখন অনেক উওরপত্রের মধ্যে যেগুলোর লেখা পরিষ্কার বা সুন্দর দেখেন তারও তখন একটা আলাদা মনোভাব তৈরী হয়। তাই চেষ্টা করতে হবে সঠিক দূরুত্ব বজায় রেখে এবং একটু কাটা-ছেঁড়া কম করে লেখার। কারণ, অনেকেই আবার কাটা গেলে সেটা বারবার কাটতেই থাকেন এতে লিখার সৌন্দর্যও নষ্ট হয়। তাই কিছু ভুল হলে সেটা ঘষামাজা না করে কাটতে হবে একটানে।

 

লিখার কিছু কৌশল

 

“এতো ভালো পরীক্ষা দিলাম তারপরও কী নাম্বার পেলাম, মনে হয় আমার খাতাটাই ঠিক মতো দেখেনি!”  আশানুরূপ ফলাফল না পেয়ে আমরা অনেকেই এই ধরণের কথা বলে থাকি। কিন্তু আমাদের কোথাও না কোথাও যে একটু হলেও ঘাটতি ছিলো আমরা সেটাই ভুলে যাই। তাই, ভালো প্রিপারেশনের সাথে তার উপস্থাপনাও সমান তালে বিবেচ্য। তাই জানতে হবে লিখার কৌশল। যেমন:

 

১। প্রশ্ন পাওয়ার পূর্বেই অবশ্যই বায়ে ও উপরে ১ স্কেল (এক/সোয়া এক ইঞ্চি) মার্জিন রাখতে হবে। তবে লুজ সীটে সময় না থাকলে মার্জিনের পরিবর্তে শুধু ওপরে ও বাঁয়ে ভাঁজ করে নিন।

 

২। হিবিজিবি ভাবে লিখলে শিক্ষকের চোখে মূল বিষয় বস্তুগুলো পরে না। তাই চেষ্টা করুন প্যারা, পয়েন্ট, কোটেশন বা রেফারেন্স দিয়ে লিখার। এক্ষেত্রে, ব্যবহার করুন নীল/সবুজ কালি। এতে পরীক্ষকের সহজে চোখে পড়ে। তবে নানা রকম অতিরঞ্জিত কালি ব্যবহার না করাই ভালো। কেননা, অনেকে সময় সেটা খাতায় বিরুপ প্রভাব ফেলতে পারে।

 

৩। কোনো প্রশ্নের উওর এক পৃষ্ঠার অধিক জায়গা লাগলে তখন অসম্পূর্ণ উত্তরে বাংলার ক্ষেত্রে অ.পৃ.দ্র. এবং ইংরেজির ক্ষেত্রে To be continued লিখতে হবে । কেননা অনেক সময় পরীক্ষকও  হয়তো উওরটি এখানেই শেষ ভেবে নাম্বার দিয়ে ফেলতে পারে কিন্তু পরে দেখলেন অপর পৃষ্ঠায়ও আছে। তাই এই কাজটি বেশ গুরুত্বপূর্ণই।

 

প্রশ্নপত্রে নজরদারি

 

প্রশ্ন পাওয়ার সাথে সাথেই পুরো প্রশ্নটি না পরে লিখা শুরু করে দেওয়া অনেক শিক্ষার্থীরই  বদভ্যাস। কিন্তু, সময় বেশি লাগলেও ধৈর্য সহকারে প্রশ্নের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে এবং উত্তর উপস্থাপনের সময় প্রশ্নের সাথে প্রসাঙ্গিক উত্তর করার চেষ্টা করতে হবে। কিন্তু অনেকেরই ধারণা, যত পৃষ্ঠা লিখা যাবে ততই নাম্বার। তাই উওর বড় করার জন্য এককথাই ইনিয়ে-বিনিয়ে বারবার লিখেন। তবে এই ধারণাটি একদমই ঠিক নয়। অবশ্যই প্রশ্নে কী চেয়েছে সেই অনুযায়ী প্রাসঙ্গিক উওরটুকুই লিখতে হবে। আর ছেড়ে আসা যাবেনা কোনো উওরই। কারণ, পরীক্ষায় খালি খাতা জমা দিয়ে আসার চাইতে কিছু লিখে যদি নাম্বারের ঝুলিতে একও বাড়ে তাইবা খারাপ কি, বলুন? তাই পুরো প্রশ্ন পড়ে সময় অপচয় হবে এমনটা চিন্তা না করে ঠান্ডা মাথায় সব উত্তর করার চেষ্টা করুন।

 

“সময় বেশি লাগলেও ধৈর্য সহকারে কাজ করো, তাহলেই প্রতিষ্ঠা পাবে।” —ডব্লিউ এস ল্যান্ডের

 

সময়জ্ঞান

আপনি সব প্রশ্নের উত্তর জানেন, কিন্তু সেগুলো যদি পরিমিত সময়ের মধ্যে শেষ করতে না পারেন তাহলে সে জানার কোনো মূল্যই রইলো না। তাই বলা যায়, পরীক্ষার হলে সময়টাই সব। অথচ, অনেকেই পরীক্ষার প্রথমে সুন্দর করে ধীরে ধীরে লিখতে গিয়ে শেষে সময়ের অভাবে তাড়াহুড়ায় আর সবটা ভালো করে শেষ করতে পারে না। তখন অনেকেই বলেন, “ইশ! শেষের উওর যে কি লিখেছি আমি নিজেই জানিনা, আর একটু যদি সময় পেতাম!” তাই প্রথমেই এমন প্রশ্নের উওর করুন যেগুলো সম্পর্কে আপনি ভালো লিখতে পারবেন। কেননা, সহজ প্রশ্নগুলো ঝটপট দিয়ে কঠিন প্রশ্ন উওর করলে তাতে সময় ব্যালেন্স হয়ে সম্পূর্ণটুকু শেষ হয়ে যায় এবং ফলাফলও ভালো হয়। তাই প্রত্যেক প্রশ্নের জন্য সময় বণ্টন এবং সেই সময়ের মধ্যে শেষ করার তাড়না থাকা প্রয়োজন।

 

পরীক্ষায় ভালো ফলাফলের আশা কে না করে! তাই শুধু পরিশ্রম করলেই হবেনা, সঠিক কৌশল অবলম্বনে পথ পেরুতে হবে সম্পূর্ণ আত্নবিশ্বাসে। তাই আত্নবিশ্বাস রাখুন নিজের প্রতি ‘আমিও পারবো’। তাছাড়া, ‘সব মনে থাকবে তো?’; ‘আমি কি পারবো?’ এমন নানান বিষণ্ণতায় যা পড়েছেন যদি তা খাতায় সঠিকভাবে উপস্থাপনা নাই করতে পারেন তাহলে আপনার সব পরিশ্রমই বৃথা। তাই মনে রাখবেন, “Alls well that ends well অর্থাৎ শেষ ভালো যার, সব ভালো তার।”  

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *