ডাকনাম ফারজুল। পেশা হিসেবে পড়ালেখার পাশাপাশি একটি ফুল-টাইম জব করি। পড়ালেখা, চাকরির পাশিপাশি কিছু সময় অনলাইনে এসে ফোন কিবোর্ডের উপর দু'আঙ্গুলের ছোঁয়ায় মনের মাধুর্য মাখিয়ে নিজের কল্পনা গুলোকে লেখার মাধ্যমে প্রকাশ করার চেষ্টা করি।

 

আর হ্যাঁ, আমার বন্ধু সার্কেল ও অনলাইনে অভয় নামটিই বেশি পরিচিত। তবে সত্যিটা হলো আমি একটু ভীতূ। আমার ভয় হলো আমার পরিবারকে নিয়ে, আমার আত্বীয়-স্বজনদের নিয়ে, আমার আশে-পাশের মানুষ গুলোকে নিয়ে, এই সমাজকে নিয়ে। আমি কি পারবো তাদের কোনো উপকারে আসতে? নাকি এ সুন্দর প্রকৃতি থেকে অক্সিজেন অপচয়ের সাথে সাথে তাদের বিরক্তির কারণও হবো? জানি না, তবে চেষ্টা করি- কারও উপকার করতে না পারলেও যেন আমার দ্বারা কারও কোনো ক্ষতি না হয়।

 

শত ব্যস্ততার মাঝেও আমি আমার প্রকৃত সুখ গুলো খুঁজে নিতে খুব পছন্দ করি। যে প্রকৃত সুখ বর্তমানে বিরলের পথে ধাবিত। আসলে "প্রকৃত সুখ" বলতে অন্যরা কি মনে করে তা জানি না তবে আমার কাছে আমার উছিলায় যখন অন্য কারও দু'ঠোঁটে তৃপ্তির হাসি ফুটে উঠে তখনই নিজেকে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সুখী ব্যক্তি বলে মনে হয়। আর সেই ধারাবাহিকতায় পড়ালেখা, চাকরির পাশাপাশি অনলাইন/অফলাইন ভিত্তিক একটি সেচ্ছাসেবী সংগঠন "হাসিমুখ" এর "Head of Education" পদে নিযুক্ত থেকে মানবসেবার মাধ্যমে মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে আমি বদ্ধপরিকর। হোক সেটা লেখালেখির মাধ্যমে, রক্তদানের মাধ্যমে অথবা অসহায় মানুষদের পাশে ছায়া হয়ে দাঁড়িয়ে।

এজন্যই সচেতনতা মূলক, অনুপ্রেরণা মূলক এবং ন্যায়ের পক্ষে লিখতে বেশ স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। চেষ্টা করি সৃষ্টিশীল কিছু লেখার যেখানে থাকবে নতুনত্ব। যার প্রতিটা বাক্য হবে মানুষের দুঃখ, বেদনা, হতাশা কাটিয়ে উঠার কাণ্ডারি।

 

আমি মনে করি জীবনে সফলতা অর্জন করতে হলে শুধুমাত্র একটি সূত্র "পড়, পড় এবং পড়" মেনে চললেই যথেষ্ট। এ সূত্রটিই একটি মানুষকে অনেক উপরে উঠাতে পারে। তবে হ্যাঁ, শুধু পড়লেই হবে না। যা পড়লাম, যে জ্ঞান অর্জন করলাম সেটা ব্যক্তি জীবনে কাজে লাগাতে হবে এবং অর্জিত শিক্ষা শুধু নিজের মধ্যে গচ্ছিত না রেখে সবার মাঝে বিলিয়ে দিতে হবে। জ্ঞান বিলিয়ে দিলে তা কখনই শেষ হয় না বরং আরও বিকশিত হয়।

 

অবশ্য পড়ার প্রতি আমার সেরকম নেশা ছিলো না। পাঠ্য বইয়ের প্রতি তো একদমই না। তবে বর্তমানে "পড়া" নেশা নয় পেশায় পরিণত হয়ে গেছে। প্রেম-প্রীতি, ভালবাসা সম্পর্কিত বিষয় গুলো এখন আর পড়তে ইচ্ছে হয় না। পড়তে ভালো লাগে অনুপ্রেরণা মূলক, রহস্যময়, কষ্টার্জিত ফসলতার গল্প, সাইন্স ফিকশন ইত্যাদি। এছাড়াও নতুন নতুন বিষয়ে জানার আগ্রহটা অনেক বেশি। লক্ষ্য যাই হোক; দক্ষতা অর্জন করতে চাই সীমাহীন।

 

সবশেষে, একটি সুন্দর সমাজের স্বপ্ন দেখি। সাথে নিজের কর্ম ও ধর্ম ঠিক রেখে বাবা-মায়ের একজন যোগ্য সন্তান হিসেবে বেঁচে থাকতে চাই জীবনাবসান অবধি।

বিষণ্ণতা দূরে রাখার জন্য প্রতিদিন যেই ১০টি জিনিস করতে পারেন

বিষণ্ণতা দূরে রাখার জন্য প্রতিদিন যেই ১০টি জিনিস করতে পারেন

'বিষণ্নতা বা ডিপ্রেশন' বর্তমান সময়ে নবজাতক শিশুটি ব্যতীত প্রায় সব বয়সের মানুষের কাছে এটি বহুল প্রচলিত একটি শব্দ। এই যান্ত্রিক জীবন ব্যবস্থায়…

1946 Views

সম্পর্কের উদ্বেগ: যে কারণে আমরা অসুখী সম্পর্কের সম্মুখীন হয়ে থাকি

সম্পর্কের উদ্বেগ: যে কারণে আমরা অসুখী সম্পর্কের সম্মুখীন হয়ে থাকি

সাধারনত প্রতিটি মানুষের মাঝেই হতাশা, রাগ, অভিমান, বিষণ্ণতা মোটকথা কোনো না কোনো মানসিক সমস্যা একটু-আধটু থাকেই। যাকে উদ্বেগ বা প্যাথলজিক্যাল অ্যাংজাইটি বলা…

1457 Views