৭ টি খারাপ গুণ যা তোমাকে ব্যক্তিত্বহীন করে তুলে

মানব চরিত্রের কিছু কিছু গুণ আছে যেগুলো সময়ের সাথে নিজেদের অজান্তেই মানুষের ব্যক্তিত্বকে ক্রমান্বয়ে করে তুলে জড়, অন্তঃসারশূন্য এবং অস্তিত্বহীন গুণ বলাটা বাহুল্য বটে, এই আচরণগুলো মানুষের ভেতরটাকে যেমন করে তুলে জড়, বাহিরটাও তেমনি করে তুলে রুগ্ন পরিশ্রান্ত গুণ কম, দোষগুলো আমরা নিত্যই আমাদের চারপাশে বন্ধুবান্ধব, সহকর্মী এমনকি নিজেদের মধ্যেও অহরহ দেখতে পাই এরকম কতকগুলো ব্যক্তিত্ববিদ্ধংসী গুনের কথা তুলে ধরা হল:

 

. হীনমন্যতাঃ

 

হীনমন্যতা বলতে নিজেকে ছোট করে দেখা বোঝায়। এটি নিঃসন্দেহে একটি খারাপ গুণ যা আমাদের ব্যক্তিত্বকে আমাদের নিজেদের অজান্তেই অন্তঃসারশূন্য করে  তুলে। এই হীনমন্যতা শুরু হয় গুটিকয়েক আরো কতকগুলো খারাপ গুণ দিয়ে, আচরণ দিয়ে যেগুলো আমরা আমাদের দৈনন্দিন জীবনের চলাফেরায় বন্ধুবান্ধব, সহকর্মী এমনকি নিজেদের মুখ দিয়ে বলা কতগুলো সাধারণ কথা দিয়েই ধারনা করে নিতে পারি।

 

 

আমাদের আত্মবিশ্বাস যতটা সংকীর্ণ হবে, আমাদের নিজেদের যোগ্যতার প্রতি বিশ্বাস ততটাই দুর্বল হবে এবং আমরা বরাবরই হীনমন্যতায় ভুগবো। 

 

ক্ষোভ, দুঃখ কিংবা কষ্টকে যতটাই মনের ভেতর পুষে রাখবো, কারো সাথে ভাগাভাগি করে নিবো না, আলোচনা করব না ততটাই আমরা হতাশায় পড়ে যাব হতাশা আমাদেরকে ভেতর দুর্বল করে শেষ পর্যন্ত ওই হীনমন্যতার দিকেই কিন্তু ঠেলে দিবে

 

সকলকে খুশি করার অবিরাম প্রচেষ্টা আমাদেরকে শুধু অন্যদের কাছে নয় বরং নিজেদের কাছেও ক্রমান্বয়ে মূল্যহীন করে তুলবে আমাদের মতামত, আমাদের ইচ্ছাঅনিচ্ছার গুরুত্ব তখন অন্যদের কাছে যেমন কমবে, আমাদের নিজেদের প্রতি বিশ্বাসটাও তেমন ক্ষীণ হয়ে যাবে এবং অবেশেষে জন্ম নিবে হীনমন্যতার

 

ভিকটিমহুড মানসিকতা আমাদের সাথে হওয়া যেকোনো অন্যায় কিংবা অবিচারের প্রতি অজুহাত হিসেবে কাজ করে, আমার সাথে তো এমনি হয় এই অজুহাত আমাদেরকে আমাদের অন্যায়ের বিচারের প্রতি অবহেলার দৃষ্টিভঙ্গি হিসেবে কাজ করে এবং অন্তর থেকে হীনমন্য করে তুলে

 

 

তাই বলা বাহুল্য যে, হীনমন্যতার যাত্রায় গন্তব্য একমাত্র হতাশা হতে বাধ্য। নিচের উক্তিটি সে কারণেই যথার্থ।

 

“Inferiority complex is a gold-plated highway to the throne of depression.”-Ikechukwo Izuokor

 

২. অহংকারঃ

 

হীনমন্যতা ও অহংকার ২ টি বিপরীত শব্দ হলেও কাকতালীয়ভাবে অহংকার নামক গুনটিও কিন্তু আমাদের ব্যক্তিত্ব ও চরিত্রকে অসার করে তোলার জন্য যথেষ্ট ।এই একটি খারাপ গুণ আমাদের নিজেদের অজান্তেই আমাদের ব্যক্তিত্বকে করে তুলে আরো দূষিত, জন্ম দেয় আরো কতক খারাপ গুনকে।

 

 

যখন আমরা নিজেদের অন্যদের তুলনায় শ্রেষ্ঠ মনে করি তা অর্থেই হোক, জ্ঞানেই হোক কিংবা বংশপরিচয়ের মতো তুচ্ছ বিষয়েই হোক না কেন, কিংবা যখন কোনো কাজের প্রতি আমাদের আত্মবিশ্বাস নয় বরং মাত্রাধিক্য আত্মবিশ্বাস চলে আসে, কিংবা আমরা আত্মচর্চাকে আমাদের বক্তব্যের মূল বিষয়ে বানিয়ে ফেলি,

 

তখনি বুঝে ফেলতে হবে যে আমরা অহংকারের কবলে পড়ে গিয়েছি। আর একবার অহংকার মনে গেঁথে গেলে এর থেকে পরিত্রান সহজ নয়। যথার্থভাবে তাই নিম্নের উক্তিটি মনে রাখাটা ভালো-

 

“Don’t let your ego get too close to your position so that if your position gets shot down, your ego doesn’t go with it.” – Collin Powell

 

৩. পরনিন্দা ও যুক্তিহীন সমালোচনাঃ

 

যুক্তিহীন সমালোচনা এবং পরচর্চা একজন মানুষের ব্যক্তিত্বকে ক্রমান্বয়ে কুৎসিত করে তোলে। তার কথোপকথন, তার আলোচনা, তার আড্ডা সবকিছুর মধ্যেই থাকে অন্যের নিন্দা, অন্যের সমালোচনা, অন্যের দোষ ত্রুটির প্রতি ব্যঙ্গাত্মক হাসি ও উপহাস। পরচর্চার বিষয়টি তার নিজের কাছে যতটাই আনন্দের মনে হোক না কেনো, পারিপার্শ্বিকের নিকট তা তার ব্যক্তিত্বের একটি কুৎসিত উপস্থাপনা মাত্র। তাই নিচের উক্তিটি যথার্থ বলেই মনে হয়-

 

“Any fool can criticize, complain and condemn- most fools do. But it takes character and self-control to be understanding and forgiving.” -Dale Carnegie

 

 

৪. অতিরিক্ত অর্থ ব্যয়ঃ

 

প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় এবং বাজেট তৈরী না করে পরিকল্পনাহীনভাবে অর্থের অপচয় নিঃসন্দেহে একটি খারাপ গুণ যা আজকে না হোক, ভবিষতে ঠিকই কঠিন বাস্তবতাকে চোখে আঙ্গুল ঠেকিয়ে দেখিয়ে দিবে। এটি ব্যক্তিত্বের বিশালতার নয় বরং অজ্ঞতার এবং মূর্খতার পরিচায়ক।

 

অর্থের অপচয় কখনোই কোনো সুফল বয়ে আনতে পারে না বরং হয় দুর্ভোগের কারণ মাত্র। আজকের আতিশায্যে ভবিষ্যতের কঠিন উপলব্ধি কাজ করে। সহজ কথা, আজকে টাকা ইচ্ছামতো উড়ালে কালকে অনটনের দেখা মিলতে পারে। তাই অর্থ ব্যয় নয়, সঞ্চয়ের দরকার, দরকার বাজেটের, দরকার পরিকল্পনার। এই বোধটুকু না আসলে অপচয় করার মাত্র কিছু অবশেষে থাকে না। বরাবরই নিচের উক্তিটি তাই বলে-

 

“The waste of money cures itself, for soon there is no more to waste.” – M W Harrison

 

৫. পরিকল্পনাহীনতা ও দূরদর্শিতা হীনতাঃ

 

জীবনে চলার পথে ভবিষ্যৎকে চিন্তা করে আজকের পরিকল্পনা করে নেওয়াটাই শ্রেয় কারণ আমাদের আজকের পরিকল্পনা, আজকের পরিশ্রম আমাদের ভবিষ্যতের লক্ষ্যকে, ভবিষতের চাওয়া পাওয়াকে বাস্তবায়িত করবে।

 

তাই নিঃসন্দেহে বলা যায় যে, দূৰদৰ্শিতাহীনতা এবং ভবিষ্যতের জন্য আজকের পরিকল্পনার অভাব নিতান্তই একটি খারাপ গুণ। এটি মানবচরিত্রের অপরিপক্কতাকেই তুলে ধরে মাত্র। মানবব্যক্তিত্বের দুর্বল দিকটিকে আঙ্গুল ঠেকিয়ে দেখিয়ে দেয়।

 

 

আজকের পরিকল্পনা যতটা গোছানো হবে, ভবিষতে পরিকল্পনাটির বাস্তবায়ন ততটাই দৃঢ় হবে। গোছানো পরিকল্পনা আমাদের সকল কার্যক্রমকে যেমন সুনির্দিষ্ট করে, তেমনি আজকের ওই কার্যক্রমের ফলাফলগুলো ভবিষ্যৎকে উজ্জ্বলও করে বটে। দূরদর্শিতা না থাকলে ভবিষতে স্বচ্ছতাও থাকবে না। আর এই গুনটি মানুষের ব্যক্তিত্বের দুর্বল দিকটিকে প্রকাশ করে। কঠিন কঠিন কথা দিয়ে নয় বরং গোছানো ৩ টি উদাহরণ দিয়ে ব্যাপারটা একেবারে বোঝা হয়ে যায়-

 

উদাহরণ:

১. মাসের শুরুতে বাজেট পরিকল্পনা, নির্ধারণ করে সম্পূর্ণ মাস সুনিশ্চিতভাবে চলা।

২. পরীক্ষার জন্য রুটিন করে পড়াশুনা, নির্ধারণ করে ফলস্বরূপ ভালো নম্বর হাতে পাওয়া।

৩. ভবিষ্যতের লক্ষ্যের জন্য আজকের পরিকল্পনা, নির্ধারণ করে লক্ষটির বাস্তবায়িত হওয়ার সমূহ সম্ভবনা।

 

৬. আসক্তিঃ

 

আসক্তি এমন একটি খারাপ গুণ যা কেবল আমাদের ব্যক্তিত্বকেই ধ্বংস করে দেয় তা নয় বরং আমাদের জীবনকেও অন্ধকারের দিকে ঠেলে দেয়। কিছু কিছু আসক্তি আছে যা আমাদের সময়কে নষ্ট করছে এবং দীর্ঘমেয়াদিভাবে আমাদের ভবিষৎও বটে। আবার এমন কিছু কিছু আসক্তি আছে যা আমাদের শরীর, সাস্থ এবং সম্পূর্ণ জীবনটাকেই ঝুঁকির দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

 

শুনতে বেশ অবাক লাগলেও সত্যি, এগুলো সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান আমাদের সবারই আছে কিন্তু ‘আসক্তি’ বলেই হয়তোবা এগুলো থেকে বেরিয়ে আসাটা অতটা সহজ হয়ে ওঠে না। কিন্তু যতটা বেশি এই আসক্তিগুলোকে আমরা আঁকড়ে ধরে রাখব, ক্ষতির ঝুলিটা ততটাই বেশি করে ভরতে থাকবে।

 

হতে পারে সেটা হারানো সময় কিংবা পরিবার পরিজনের স্নেহ, হতে পারে তা জলে যাওয়া ওযেল অর্থ কিংবা অতীত হওয়া সুন্দর স্বাস্থ্য।

 

 

আসক্তি হতে পারে বিভিন্ন রকমের কিন্তু এটি বয়ে নিয়ে আসে একটি জিনিসই, তা হলো ক্ষতি।

 

উদাহরণ:       

১. সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর প্রতি, যেমন ফেইসবুক, মেসেন্জার, হোয়াটসঅ্যাপ প্রভৃতি।

২. অনলাইন গেমস, নিত্যনতুন ভিডিও গেমস এর প্রতি আসক্তি।

৩. নেশাজাতীয় দ্রব্যের প্রতি আসক্তি, যেমন সিগারেট, তামাক, গাজা, হেরোইন প্রভৃতি।

৪. এলকোহলের প্রতি আসক্তি।

 

“Every form of addiction is bad, no matter whether the narcotic is alcohol or morphine or idealism.”– Carl Jung

 

৭. সময়ের অপব্যবহারঃ

 

সময়ের অপব্যবহার বরাবরই একটি খারাপ গুণ যা আমাদের ভবিষতের অনিশ্চয়তার কারণ হয়ে আমাদের আচরণ ও ব্যক্তিত্বকে ক্রমান্বয়ে দুর্বল করে তুলে।

 

এই খারাপ গুনটি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা থাকা সত্ত্বেও আমরা নিশ্চিন্তে এটিকে অব্যাহত রাখি।

 

কাজের প্রতি অনীহা বলি কিংবা আলস্য, শত শত এরকম যুক্তিহীন কারণে আমরা নিয়মিত সময়ের অপব্যবহার করি কিন্তু এর উপলব্ধি আমাদের তখন হয়ে যখন বর্তমান সময়ের অপব্যবহার ভবিষতের কঠিন বাস্তবতা হয়ে দাঁড়ায়।

 

সুন্দর জীবনের গোছানো বর্তমান এবং উজ্জ্বল ভবিষৎ আজকের সময়ের কাজে লাগানোর উপরি কিন্তু নির্ভর করে। তাই –

 

“If you love life, don’t waste time, for time is what life is made up of.” -Bruce Lee

 

আলোচনায় আসা এই ব্যক্তিত্ব বিধ্বংসী গুণ গুলো আমাদের কেবল বর্তমানকে নয় বরং ভবিষৎকেও অন্ধকারে ঠেলে দেয়। তাই এগুলো থেকে বেরিয়ে আসাটা খুবই জরুরি। বেরিয়ে আসার পথটা কঠিন আর শক্ত মনে হলেও অসম্ভব কিছু নয়। আপাতদৃষ্টিতে কঠিন পথটাও পার করা যাবে, এই আচরণ, খারাপ গুণগুলো থেকে বেরিয়ে আসা অবশ্যই যাবে যদি মনের জোর এবং আত্মবিশ্বাস অটল থাকে।

 

নিজেকে কখনো তুচ্ছ ভাবা যাবে না।

অহংকারকে নিজের কাছে ঘেঁষতে দেওয়া যাবে না।

হাতের কাছে পাওয়া সময়কে আমরা করব না অবহেলা।

সময়ের সাথে সাথে আমরা বানিয়ে ফেলবো ভবিষতের পরিকল্পনা।

আজকের আমিকে আমি অন্যের সমালোচনায় করব না ব্যর্থ

অনর্থক ভাবে খরচ হবে না আর কোনো অর্থ

আসক্তির কাছে হবে না কখনো মাথা নত

 

এই ৭ টি মন্ত্রই হচ্ছে আমাদের ব্রত

 

ছন্দের ব্যাপারটুকু হাসির খোরাক যেমন দিবে, আত্মবিশ্বাসের টনকটাও তখনই কিন্তু উপলব্ধি হবে।

 

https://www.facebook.com/spikestoryOfficial/videos/533793010292838/

 

 

 

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *