1540 Views

সুখ, জীবনের সবচেয়ে আকাঙ্ক্ষিত একটি শব্দ। এটি শুধুই কি শব্দ? সৃষ্টির শুরু থেকেই অধরা এই শব্দের পিছনে আমরা ছুটে চলেছি। বিখ্যাত টিভি ব্যক্তিত্ব অপরাহ উইনফ্রে একবার দালাই লামাকে প্রশ্ন করেছিলেন – ‘ক্ষমা প্রার্থনা করতে হয় এমন কাজ কি কখনো করেছেন?’ উত্তরে তুমুল আলোচিত এই আধ্যাত্মিক মানুষটি বলেছিলেন – ‘মশা এবং ছারপোকার প্রতি আমি ততোটা সহানুভূতিশীল নই।’ ধর্মীয় নেতা হবার পাশাপাশি দালাই লামা তার অসাধারণ জীবনবোধ, অসামান্য জ্ঞান এবং জীবন সংশ্লিষ্ট উপদেশের জন্য বিখ্যাত। সুখী হবার জন্য আমাদের যে নিরন্তর প্রচেষ্টা আদিকাল থেকেই চলে আসছে, তা সফল করতে এবার তাহলে এই মহান মানুষটির দেয়া কিছু উপদেশ জেনে নেয়া যাক –

 

অন্যের প্রতি সহানুভূতিশীল হন

 

“The topic of compassion is not at all religious business; it is important to know it is human business, it is a question of human survival.” -Dalai Lama

 

শুধুমাত্র মানসিক উন্নতির জন্য নয়, সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে অন্যের প্রতি সহানুভূতিশীল মনোভাব আমাদের স্বাভাবিক হার্টবিট এবং দেহের কার্যকর প্রতিরক্ষাব্যবস্থা বজায় রাখার জন্যও খুব প্রয়োজন। গবেষণাটিতে আরো দেখা গেছে, আমরা খাওয়াদাওয়া করলে কিংবা কোথাও ঘুরতে গেলে যে ধরণের আনন্দ পাই- ঠিক সেই ধরণের আনন্দ আমরা অন্যের প্রতি সহানুভূতিশীল হওয়ার মাধ্যমে খুঁজে পেতে পারি। অন্যের প্রতি সহানুভূতিশীল হলে  অসুস্থ বন্ধু, শোকসন্তপ্ত পরিবার কিংবা গৃহহীন কোনো স্বজনের সাথে কথা বলুন। তাদের সমস্যার সমাধান করতে যদি নাও পারেন তবুও চেষ্টা করুন তাদের মানসিক শক্তির যোগান দিতে।

 

অপরকে সাহায্য করুন

 

“Be kind whenever possible. It is always possible.” -Dalai Lama

 

জীবনের আসল অর্থটা অন্যকে সাহায্য করার ভেতর দিয়েই খুঁজে পাওয়া সম্ভব। এর জন্য কোনো মন্দির, মসজিদ, গির্জা, প্যাগোডা কিংবা জটিল কোনো ধর্মশাস্ত্র বা দর্শনশাস্ত্রের দরকার পড়ে না। নিজের হৃদয় দিয়ে যখন আপনি কাউকে সাহায্য করেন, তখন অদ্ভুত একটা ভালোলাগা এবং প্রশান্তি আপনাকে ছুঁয়ে যাবে; কোনো কিছুর সাথেই যার পাবেন না। খোঁজ নিয়ে দেখুন, হয়তো আপনারই কোনো এক প্রতিবেশী আর্থিক টানাপোড়েনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, ক্লাসের কোনো সহপাঠী হয়তো অজান্তেই ডুবে যাচ্ছে হতাশায়, টিউশনির টাকায় পড়ার খরচ জোগাতে হিমশিম খাচ্ছে ডিপার্টমেন্টের কোনো ছোট ভাই। দরকার শুধু একটা সাহায্যের হাত, আর সে হাতটি হতে পারে আপনারও।

 

নিজের সুখ নিজেই খুঁজে নিন

 

“The purpose of our lives is to be happy.” -Dalai Lama

 

রেডিমেড পোশাক, রেডিমেড খাবারের মত রেডিমেড সুখ খুঁজতে আমরা সবাই প্রতিনিয়ত ব্যস্ত থাকি। এসব করতে করতে আমরা ভুলেই যাই যে সুখ জিনিসটা আসলে ব্যাংকের চেকবইয়ে, বড় বড় শপিংমলে কিংবা পাঁচ তারকা হোটেলের মেনুকার্ডে নেই! বরং সুখ খুঁজে পাওয়া যায় ছোট ছোট দুটো ভালমন্দ কথায়, একটু-আধটু সাহায্যতে। সুখ দামি ঠিকই, কিন্তু দাম দিয়ে যে সব সময় সুখ কেনা যায় না -এই কথাটা আমরা প্রায়ই ভুলে যাই।

 

আত্মিক শান্তির প্রতি মনোযোগী হোন

 

দালাই লামার মতে, দিনের কিছুটা সময় আমাদের নিজেদের জন্য একান্তই কিছু সময় কাটানো উচিত। দিনের খানিকটা সময় চারপাশের ক্রমাগত নেতিবাচকতা থেকে নিজেকে বের করে আনার জন্য নিজের সাথে ভাল বোঝাপড়া থাকাটাও খুব দরকার। আমাদের মনই আমাদের চালিকাশক্তি। কী যেন নেই, কী যেন বাকি রয়ে গেল- এই ধরনের চিন্তাভাবনাগুলোই আমাদের যাবতীয় অশান্তির কারণ। তাই ইতিবাচক চিন্তাভাবনা করুন, আত্মিক শান্তির উপর গুরুত্ব দিন। দিনশেষে ধোঁয়া ওঠা এককাপ গরম চা, হাতে প্রিয় গল্পের বই সাথে পছন্দসই কোনো গান – এই নিয়ে বারান্দার এক কোণে বসে যান। চাওয়া-পাওয়ার সব হিসাব ভুলে গিয়ে শুধু নিজের সাথে কিছুটা সময় কাটান।

 

অন্যের ক্ষতি করা থেকে বিরত থাকুন

 

“If you can, help others; If you cannot do that, at least do not harm them.” -Dalai Lama

 

যতটা সম্ভব হয়, চেষ্টা করুন অন্যকে সাহায্য করতে। যদি সেটা না পারেন, অন্ততপক্ষে আপনার কারণে যেন কারোর কোনো ক্ষতি না হয় এটা লক্ষ্য রাখুন। আপনার পরনিন্দা, পরচর্চা, গুজব ছড়ানো বা মিথ্যা বলার মত কাজ অন্যের জন্য বিরাট ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে এটা মাথায় রাখবেন। অন্যের কাছে নিজেকে অনর্থক জাহির করার ব্যপারটিকে বন্ধুদের ভাষায় অনেকে ‘ফাঁপর নেয়া’ বলে। নিছক মজা করার উদ্দেশ্যে অন্যের উপর ‘ফাঁপর’ নিতে গিয়ে আমরা যেন কারোর মনে কষ্টের কারণ হয়ে না দাঁড়াই।

 

বন্ধু এবং বন্ধুত্বকে সম্মান করুন

 

একজন ভালো বন্ধু জীবনে আশীর্বাদের মতো। ব্যক্তিস্বার্থ, লোভ, হিংসা, রাজনৈতিক কিংবা ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে বন্ধুত্বকে বিচার করবেন না। বন্ধুত্ব এগুলোর সবকিছুর উর্দ্ধে। ‘ও তো আছেই’ ভেবে যে বন্ধুকে আজ আপনি অবহেলা করছেন, অহেতুক ব্যস্ততায় তাকে কখন যে হারিয়ে ফেলবেন বুঝতেই পারবেন না। আর এই ধরনের পরিস্থিতিতেই জীবনে আসে ডিপ্রেশন। তাই বন্ধুদের গুরুত্ব দিন, বন্ধুত্বকে সময় দিন। ঘণ্টার পর ঘণ্টা ফেসবুক নিউজফিড স্ক্রল না করে বন্ধুরা মিলে বরং কাছাকাছি কোথাও থেকে ঘুরে আসুন। অনেক সময় হয়তো সবাই মিলে একসাথে হওয়া সম্ভব হয় না, সেক্ষেত্রে ভিডিও কল কিংবা কনফারেন্স কলের মতো প্রযুক্তি তো আছেই।

 

প্রযুক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করুন, প্রযুক্তি যেন আপনাকে নিয়ন্ত্রণ না করে

 

আপনি কি জানেন দালাই লামা নামক সম্পূর্ণ সাদামাটা এই মানুষটির আট মিলিয়নের অধিক টুইটার ফলোয়ার রয়েছে? প্রতিদিন সেই সংখ্যা বাড়ছে। প্রচুর লোক রোজ তাঁর বিভিন্ন বাণী, বিভিন্ন টুইট রিটুইট করে থাকে। কিন্তু খুব কম লোক আছে যারা তাঁর এই বাণীগুলোকে নিজের জীবনে কাজে লাগায়। প্রযুক্তি আজকাল জীবনকে সহজ করেছে ঠিকই, কিন্তু কেড়ে নিচ্ছে সামাজিক মূল্যবোধ, সৌজন্য এবং সৌহার্দ্য। তাই প্রযুক্তি আপনাকে পুরোপুরি গ্রাস করার আগেই লাগাম টানুন, যতোটুকু না হলেই নয় ঠিক ততোটুকুই ব্যবহার করুন।

 

সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধানের চেষ্টা করুন, ঝগড়া বিবাদ বা গায়ের জোরে নয়

 

ধরে নিন, রাস্তায় একটা পাথর পড়ে আছে। আপনি চাইলে পাথরটা এড়িয়ে পাশ দিয়ে চলে যেতে পারেন, আবার পাথরটা ভেঙে রাস্তা করে নিতে পারেন। কোনটা করবেন আপনি?

 

যেকোনো সমস্যা সামনে এলে চেষ্টা করুন শান্তিপূর্ণ সমাধান করার। গায়ের জোরে সমাধান করতে গেলে অনেক ক্ষেত্রেই হিতে বিপরীত হতে পারে। যে সমস্যার সমাধান হাসিমুখে, দুটো ভালো কথায় করা সম্ভব, সেখানে শুধু শুধু গলাবাজি করা বা গায়ের জোর দেখানোটা নির্বুদ্ধিতা ছাড়া আর কিছুই না!

 

ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নিন

 

“When you lose, don’t lose the lesson.” -Dalai Lama

 

নিজের ভুলগুলো থেকে শিক্ষা নিন। কতোবার ব্যর্থ হয়েছেন তা মনে রাখার চেয়ে কেন ব্যর্থ হয়েছেন সেটা মনে রাখা বেশি জরুরি। কোথায় ভুল ছিল আর কীভাবে সেই ভুলগুলিকে এড়ানো যায় সেইদিকে মনোযোগ দিন। আমরা সবসময় চেষ্টা করি খারাপ মুহূর্তগুলোকে ভুলে যেতে। অথচ খারাপ সময়ই আমরা জীবনের সবচেয়ে দামি শিক্ষাটা পাই। খারাপ সময় কেন এসেছিল, কীভাবে সেই সময়টাকে কাটিয়ে উঠলাম, কে কে সেই সময়ে পাশে ছিল আর কারা সেই দু:সময়ে ন্যূনতম সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়নি-এই শিক্ষাগুলি নিজের জীবন থেকে নিতে হবে, কোনো ক্লাসরুমের ব্ল্যাকবোর্ডে এগুলো পাওয়া যায় না।

 

তাহলে? কি মনে হয়? দালাই লামার এই উপদেশগুলো কি একটু হলেও আপনাকে সাহায্য করবে সুখী হতে? এক কাজ করুন, আজ থেকেই বরং চেষ্টা করুন এই কথাগুলো মেনে চলার এবং আপনার প্রিয়জনকেও জানিয়ে দিন সুখী হওয়ার এই উপদেশগুলো। প্রথমদিকে হয়তো সবগুলো মেনে চলতে পারবেন না, কিন্তু ধীরে ধীরে বুঝতে পারবেন সুখী হওয়ার জন্য আসলে খুব বেশি কিছু লাগে না। সততা, হৃদয়ের উষ্ণতা আর অন্যের প্রতি সহমর্মিতা…..ব্যস,আর কি চাই!